উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে ২৪ লক্ষ টাকা দূর্নীতির দায়ে বরখাস্তকৃত নিয়োগ বিহীন প্রধান শিক্ষকের এমপিও ভুক্তিকরণের ভূয়া কাগজ-পত্র অগ্রায়ণ করলেন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আলতাফ হোসেন

শামীম আহমেদ :

কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচর উপজেলাস্হ জনতা আইডিয়াল জুনিয়র হাই স্কুলের নিয়োগ বিহীন ভূয়া প্রধান শিক্ষক মো:কামরুল ইসলাম বিদ্যালয়ের কমিটি না থাকায় গত ০৫/০৬/২০২০ ইং তারিখে নিয়োগ সংক্রান্ত ভূয়া কাগজ-পত্র ও জাল বি.এড.সনদের মাধ্যমে উপ-পরিচালক, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর, ময়মনসিংহ অঞ্চল বরাবরে প্রধান শিক্ষক হিসেবে এমপিও ভুক্তিকরণের জন্য আবেদন করলে,জাল সনদের জন্য তার আবেদন বাতিল করা হয় এবং বি.এড.সনদ ছাড়া পুনরায় ২৭/০৬/২০২০ ইং তারিখে আবেদন করলেও বি.এড ডিগ্রি যোগ্যতার অভাবের জন্য আবারও তার আবেদন বাতিল করেন উপ-পরিচালক । গত জুন মাসের শেষের দিগে বিদ্যালয়ের কমিটি অনুমোদন হলে কমিটির সভাপতি মো:কামরুল ইসালমকে নির্দেশ প্রদান করেন প্রধান শিক্ষক হিসেবে তার নিয়োগ সংক্রান্ত সকল কাগজ-পত্র কমিটির নিকট উপস্হাপন করার জন্য এবং সভাপতির অনুমতি ছাড়া পুনরায় আবেদন দাখিল না করার জন্য কিন্তু মো:কামরুল ইসলাম গত ২৮/০৭/২০২০ ইং তারিখে সভাপতির অনুমতি ও প্রযোজ্য ক্ষেত্রে স্বাক্ষর ছাড়া ভূয়া নিয়োগ সংক্রান্ত কাগজ-পত্রের মাধ্যমে এমপিও ভুক্তির জন্য পুনরায় আবেদন দাখিল করলে বিদ্যালয়ের সভাপতি কুলিয়ারচরের উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার আলতাফ হোসেন কে অনুরুদ করেন মো:কামরুল ইসলামের কাগজ-পত্র অগ্রায়ণ না করার জন্য এবং তিনিও আশ্বস্ত করেন যে ভূয়া কাগজ-পত্রের আবেদন আর অগ্রায়ণ করা হবে না।অন্য দিকে গত ০৩/০৮/২০২০ ইং তারিখে বিভিন্ন অনিয়ম,দূর্নীতি ও ভূয়া নিয়োগ সংক্রান্ত কাগজ-পত্র তৈরীর অভিযোগে মো:কামরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত করে এ বিষয়ে তদন্তের জন্য কমিটি গঠন করে বিদ্যালয়ের কমিটি।গত ০৬/০৬/২০২০ইং তারিখে তদন্ত কমিটির উপস্হাপিত রিপোটে মো:কামরুল ইসলামের বিরুদ্ধে ২৪ লক্ষ টাকা দূর্নীতি ও নিয়োগ সংক্রান্ত মূল কাগজ-পত্রের অস্হিত্বহীনতা উঠে আসে। তদন্ত রিপোর্টের আলোকে বিদ্যালয়ের কমিটি মো:কামরুল ইসলামের কোন প্রকার নিয়োগ অস্হিত্ব না থাকায় “স্বীকৃতিপ্রাপ্ত বেসরকারি মাধ্যমিক স্কুল শিক্ষকগণের চাকুরীর শর্ত বিধিমালা১৯৭৯” এর ১৫ ধারায় অব্যহতি প্রদান করেন।বিদ্যালয়ের কমিটি মো: কামরুল ইসলামকে সাময়িক বরখাস্ত এবং অব্যহতি প্রদানের বিষয়টি কুলিয়ারচর উপজেলার মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো আলতাফ হোসেন কে লিখিত ভাবে অবগত করার সত্ত্বেও তিনি ভূয়া কাগজ-পত্র দিয়ে এমপিও ভুক্তির আবেদন টি গত ০৯/০৮/২০২০ ইং তারিখ রাতে তরিগরি করে অগ্রায়ণ করেন এবং কিশোরগঞ্জ জেলা শিক্ষা অফিসারও পরের দিন সকালেই অগ্রায়ণ করেন।এ বিষয়ে কুলিয়ারচর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মো:আলতাফ হোসেন এর সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন,বিধিমোতাবেক মো:কামরুল ইসলাম সাময়িক বরখাস্তকৃত এবং পরবর্তীতে অব্যহতি প্রাপ্ত কিন্তু তিনি তার উর্ধ্বতন কর্মকর্তার নির্দেশে নিয়োগবিহীন, ভূয়া ও অব্যহতি প্রাপ্ত ব্যক্তির কাগজ-পত্র অগ্রায়ণ করতে বাধ্য হয়েছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »