গোপন তথ্য ফাঁস সাহেদের কারণেই ভেঙ্গেছে অভিনেতা অপূর্ব-অদিতির সুখের সংসার

বিনোদন প্রতিবেদন:
গোয়েন্দাদের কাছে নিজে মুখে এ কথা স্বীকার করেছেন সাহেদ। গত ১৭ মে নয় বছরের দাম্পত্য জীবনের অবসানের কথা সোস্যাল মিডিয়ায় স্বীকার করেন ছোটপর্দার দর্শকপ্রিয় অভিনেতা জিয়াউল ফারুক অপূর্ব এবং নাট্যকার নাজিয়া হাসান অদিতি। নিউইয়র্ক মেইল জানা গেছে, রিজেন্ট হাসপাতালের মালিক প্রতারক সাহেদের ফাঁদে পড়েই তছনছ হয়ে গেছে আদর্শ দম্পতি হিসেবে পরিচিত এই তারকা জুটির। ডিভোর্সের পর অদিতি কারণ হিসেবে ভিন্ন কথা বললেও তাদের সন্তানের ভবিষ্যত এবং ক্যারিয়ারের কথা ভেবে অপূর্ব এ ব্যাপারে মুখ খোলেননি।রিমান্ডে সাহেদ জানিয়েছেন, অদিতিকে সামনে রেখেই তার সিনেমা জগতে নামার স্বপ্ন পূরণ করতে চেয়েছিলেন। আর সংসারের মোহ ভুলে-সবকিছু ফেলে সেই ফাঁদে পা দেয় অদিতি।নাজিয়া হাসান অদিতি বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। তিনি রেগে গিয়ে বললেন, বিষয়টি একেবারেই অদ্ভুত, ডিভোর্সের বিষয় নিয়ে আমি কোনো কথা বলতে চাই না।২০১১ সালের ২১ ডিসেম্বর নাজিয়া হাসান অদিতির সঙ্গে দ্বিতীয় সংসার জীবন শুরু করেন অপূর্ব। এর আগে অপূর্ব ২০১০ সালের ১৮ আগস্ট ভালোবেসে বিয়ে করে মডেল-অভিনেত্রী সাদিয়া জাহান প্রভাকে। প্রভার সাবেক প্রেমিক রাজিবের সাথে তার অবৈধ সম্পর্কের কথা জানতে পেরে ২০১১ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি প্রভার সাথে বিবাহ বিচ্ছেদ করেন। অপূর্ব-অদিতির একমাত্র সন্তান জায়ান ফারুক আয়াশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »