ঘুষ যে দেয় আর ঘুষ যে নেয় তারা সমান অপরাধী: কুলিয়ারচর থানার ওসি এ কে এম সুলতান মাহমুদ

কুলিয়াচর প্রতিনিধি:
কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ এ কে এম সুলতান মাহমুদ বলেন, ঘুষ যে দেয় আর ঘুষ যে নেয় তারা সমান অপরাধী। তাই আপনারা কেউ পুলিশকে ঘুষ দিবেন না।

“মুজিব বর্ষের অঙ্গীকার, পুলিশ হবে জনতার” এ স্লোগানকে সামনে রেখে মঙ্গলবার (১৮ আগষ্ট) বিকালে উপজেলার ছয়সূতী ইউনিয়নের আরব আলীর চকবাজারস্থ বায়তুল ফালাহ জামে মসজিদ প্রাঙ্গনে কুলিয়ারচর থানা পুলিশ কর্তৃক আয়োজিত ৭নং বিট পুলিশিং সভায় তিনি এলাকাবাসীকে উদ্দেশ্য করে এ কথা বলেন।

এ সময় তিনি আরো বলেন, কুলিয়ারচর থানায় আগে কি হয়েছে জানিনা। জানতেও চাইনা। বর্তমানে আমি বিনা পয়সায় জনগণের সেবা দিতে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ। আপনারা কেউ দালাল নিয়ে থানায় যাবেন না। আমরা যেহেতু বিনা পয়সায় আপনাদের সেবা দিতে অঙ্গীকার করেছি সেহেতু দালাল না নিয়ে আমাদের সাথে সরাসরি কথা বলুন। যদি সঠিক কাজ নিয়ে আমাদের কাছে আসেন তাহলে সঠিক বিচার পাওয়ার ব্যবস্থা করে দেওয়া হবে। আর যদি অন্যায় আবদার নিয়ে থানায় আসেন তাহলে আমাদের সহযোগীতা পাবেন না। আগেরকার মানুষ পুলিশ সদস্যের বাবা-মা, ভাই-বোন ও স্ত্রী-সন্তান পরিচয় দিতে লজ্জা পেতো। বাংলাদেশ পুলিশ এখন এদেশের অহংকার। চলমান কোভিড-১৯ করোনা দূর্যোগ মূহুর্তে তা প্রমান করে আসছে পুলিশ। এখন আর পুলিশ সদস্যের স্বজন পরিচয় দিতে কারোর লজ্জা লাগেনা। এখন গর্ববোধ করি আমি বাংলাদেশ পুলিশের একজন সদস্য হতে পেরে। সঠিক ভাবে জনগণের সেবা দেওয়াই আমার কর্তব্য। আমি এক পয়সাও খরচ করে এ থানায় বদলী হয়ে আসিনি। আমার যেহেতু কোন প্রকার টাকা খরচ করতে হয়নি সেহেতু আমারও কোন প্রকার খরচ উঠিয়ে নেওয়ার প্রয়োজন হবেনা। থানায় সেবা নিতে আপনারা কেউ পুলিশকে এক পয়সাও ঘুষ দিবেননা। আমরা বিনা পয়সায় আপনাদের সেবা করে যাবো। অত্র এলাকার নির্যাতিত অসহায় মানুষ অভিযোগ নিয়ে থানায় আসলো আমাদের পুলিশ বিনা পয়সায় অভিযোগ লিখে দিবে। থানার কোন অফিসার কিংবা পুলিশ সদস্য ঘুষ দূর্নীতিসহ কোন প্রকার অপরাধ কর্মকান্ডের সাথে জড়িত থাকলে আমাকে অবগত করবেন। আমি তাৎক্ষনিক ওই পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যবস্থা করবো।

এ উপজেলা থেকে মাদক, জুয়া, চুরি, ডাকাতি, ইভটিজিং, বাল্যবিবাহ, দালালচক্র ও টাউট-বাটপারসহ বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকান্ড প্রতিরোধ করে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে উপজেলার সকল শ্রেণিপেশার মানুষের সহযোগিতা কামনা করে তিনি আরো বলেন, আপনারা আমাকে সহযোগীতার এক হাত বাড়ালে আমি দু’ হাত বারিয়ে দোবো। আপনারা হাটু পানিতে নামলে আমি গলা পানিতে নামবো।

এখন থেকে কষ্টকরে আপনারা যাতে থানায় যেতে না হয় আমি সেই ব্যবস্থা করতে আপনাদের সহযোগীতা চাই। প্রতিটি ইউনিয়ন পরিষদে আমি একটি করে বিট পুলিশিং এর অফিস করে দিয়েছি। প্রতিটি অফিসে দুইজন অফিসারসহ দুই পুলিশ সদস্য দায়িত্ব পালন করে আপনাদের সুখ, দুঃখ ও অভিযোগ শুনে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবে। মাসে চার দিন আমি উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নে গিয়ে আপনাদের খোজ খবর নিবো ও কথা শুনবো। বর্তমানে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যয়ে যাচ্ছি। কিছু দিনের মধ্যে বাড়ি বাড়ি গিয়ে উঠান বৈঠক করে আপনাদের কথা শুনে পারিবারিক বিরোধ মিটানোর ব্যবস্থা করবো। কোন প্রকার অপরাধ এ উপজেলায় হতে দেবোনা। এখন থেকে আপনারা যাতে টাকা খরচ করে থানায় না যেতে হয় এ উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ত্রিশ শতাংশ অপরাধ সংগঠিত হয় মাদক থেকে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা’র নির্দেশ বাংলাদেশকে মাদক মুক্ত করা। মাদক মুক্ত করতে আপনাদের সহযোগীতা খুবই প্রয়োজন। আপনারা সহযোগীতা করলে সমাজ থেকে মাদকসহ বেশীরভাগ অপরাধ নির্মূল করা সম্ভব হবে ইনশাআল্লাহ। তাই “তথ্য দিন সেবা নিন” কুলিয়ারচর থানা এলাকাকে চুরি, ডাকাতি, জুয়া, মাদক, জঙ্গীবাদ, বাল্য বিবাহ, যৌতুক, সন্ত্রাস মুক্ত করে সকল প্রকার অপরাধীদের আইনের আওতায় আনার লক্ষে কুলিয়ারচর থানা পুলিশকে তথ্য দিয়ে সহযোগীতা করুন।

এ সময় অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, ছয়সুতী ইউপি চেয়ারম্যান মীর মো. মিজবাহুল ইসলাম, থানার সেকেন্ড অফিসার এসআই মোহাম্মদ আজিজুল হক, ছয়সূতী ইউনিয়ন বিট অফিসার এসআই মো. আবুল কালাম আজাদ, সহকারী বীট অফিসার এএসআই মো. আব্দুল গফ্ফার, এএসআই জুয়েল, ইউপি সদস্য মো. বাচ্চু মিয়া, মুক্তিযোদ্ধা, জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক, রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দসহ এলাকার গণ্যমাণ্য ব্যক্তিবর্গ।

উল্লেখ্য, গত ৯ জুলাই কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আব্দুল হাই তালুকদার সরকারী আদেশে জরুরী ভিত্তিতে মাদারীপুর জেলায় বদলীর আদেশ পাওয়ার সাথে সাথেই ঢাকা রেঞ্জ অফিস থেকে ইন্সপেক্টর এ কে এম সুলতান মাহমুদ কুলিয়ারচর থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) হিসেবে যোগদান করে রাত ১১ টার দিকে ওসি আব্দুল হাই তালুকদারের নিকট থেকে দায়িত্ব বুঝে নিয়ে মাঠে কাজ করছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »