দ্বিতীয় দিনেও সারাদেশের ন্যায় ভৈরবে কড়াকড়ি অবস্থানে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ

রিপোর্ট, শামীম আহমেদ :

প্রাণঘাতী করোনা মোকাবিলায় কিশোরগঞ্জের ভৈরবসহ সারাদেশে চলছে দ্বিতীয় দিনের মতো সর্বাত্মক লকডাউন। মানুষের চলাচল থেকে শুরু করে গাড়ি চলাচলে চলছে কঠোর কড়াকড়ি। লকডাউন বাস্তবায়নে চেকপোস্ট বসিয়ে তৎপরতা চালিয়ে যাচ্ছে উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ।

আজ বৃহস্পতিবার (১৫ এপ্রিল) কিশোরগঞ্জের বন্দরনগরী ভৈরব বাজার ও বাসস্ট্যান্ড সহ বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, জরুরি সেবা ছাড়া অন্যান্য গাড়িকে থামিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে জরিমানা আদায় করছে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট লুবনা ফারজানা। এসময় ভ্রাম্যমাণ আদালতকে সহযোগীতা করেন ভৈরব শহর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ ইন্সপেক্টর মোঃ শ্যামল মিয়ার নেতৃত্বে শহর পুলিশ ফাঁড়ি পুলিশ সদস্যরা । মানুষের চলাচল নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করতেও সড়কে অবস্থান নিয়েছে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা।
সড়কে চলাচলকারী লোক যদি জরুরি সেবার সঙ্গে যুক্ত থাকেন তাদেরই শুধুমাত্র চেকপোস্ট অতিক্রম করার অনুমতি দেয়া হচ্ছে। আর যারা জরুরি সেবার আওতায় নন তাদের ফিরিয়ে দেয়া হচ্ছে। পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘মুভমেন্ট পাস’ ছাড়া কাউকে বাড়ির বাইরে আসতে দেয়া হবে না
এদিকে অনেক সড়কে বেরিকেড বসিয়ে যান চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। এর ফলে জরুরি সেবার গাড়ি নিয়মিত চলাচল করতে পারছে না। এসব গাড়িগুলো চলাচলের জন্য বিকল্প সড়ক ব্যবহার করছে। অন্যদিকে বন্দরনগরী ভৈরব এর বিভিন্ন গলিতে নির্দিষ্ট স্থান পর পর বাঁশ দিয়ে প্রতিবন্ধক গড়ে তুলেছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। পুলিশের বাধার মুখে রিকশাসহ ছোট বাহন চলাচল করলেই রিকশার সিট খুলে রেখে চাবি নিয়ে যাচ্ছে ভৈরব এর ট্রাফিক ও হাইওয়ে পুলিশ । শুধুমাত্র নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্য কেনার জন্য স্থানীয় স্বেচ্ছাসেবকরা লোকদের চলাফেরা করতে দিচ্ছেন।
এদিকে সরকারের দেওয়া করা লকডাউনে মানবেতর জীবনযাপন করছেন নিম্ন আয়ের মানুষজন। তাদের দাবী লকডাউন দিয়েছে আমরা মানতে বাদ্য তবে ঘরে খাবার নেয়, যদি সরকারের কাছে যদি আমরা সাধারণ নিম্ন আয়ের মানুষজন খাবার পেতাম তা নাহলে ঘরে বসে লকডাউন পালন করতাম। এখন তো আমরা মরার উপর খারার গাঁ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »