October 19, 2021, 12:32 pm
শিরোনাম :
সরকারি জিল্লুর রহমান মহিলা কলেজে প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিন উদযাপন কুলিয়ারচর থানার ওসি সুলতান মাহামুদকে ফুলের তোড়া ও ক্রেস্ট দিয়ে বিদায়ী সংবর্ধনা ভৈরবে এতিমদের মাঝে জেলা প্রশাসক জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম স্মৃতি সম্মাননা পেলেন ইউপি চেয়ারম্যান নিজাম ক্বারী ভৈরবে নগর সমন্বয় কমিটি (টিএলসিসি)’র ত্রৈমাসিক সভা অনুষ্ঠিত ভৈরবে কোভিড-১৯ টিকা প্রয়োগের বিষয়সহ সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে জেলা প্রশাসকের মতবিনিময় সভা ভৈরবে বিভ্রান্তিমুলক খবর প্রকাশের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন রাতে ঢাকা থেকে জামালপুরগামী ট্রেনে ডাকাতি, নিহত ২ আমাকে আর ইভা রহমান বলবেন না, আমি এখন ‘ইভা আরমান’ তৃতীয়বারের মতো বিসিবির সভাপতির দায়িত্ব পাচ্ছেন পাপন

ভৈরবে ইউপি মেম্বার গোলাবরসহ কয়েকজনকে বাবু হত্যা মামলার আসামী করে ফাঁসানোর অভিযোগ

শামীম আহমেদ
  • আপডেটের সময় : Saturday, June 19, 2021
  • 1566 দেখেছেন:

কিশোরগঞ্জের ভৈরবে জমি নিয়ে পুর্ব বিরোধের জের ধরে প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে মোলায়েম হোসেন বাবু (২১) নামে যুবক নিহত হয়েছেন। হামলাকারিরা কালা মিয়ার পক্ষের লোকজনের ২০ থেকে ২৫টি ঘরবাড়িও ভাংচুর সহ লুটপাট করে। গত সোমবার (১৪ জুন) সকাল আনুমানিক ৮টার সময় গজারিয়া ইউনিয়নের মানিকদী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। নিহত বাবু মানিকদী গ্রামের কালা মিয়ার ছেলে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন।

নিহতের পিতা ও এলাকাবাসী জানান, কালা মিয়া ও মজনু মিয়া একই বংশের সম্পর্কে তারা চাচাতো ও জেঠাত ভাই। তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত জায়গা জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। বিরোধ নিস্পত্তি করতে এলাকায় ৮ থেকে ১০ বার সালিশী বৈঠকও হয়েছে। কিন্তু কালা মিয়া পক্ষ সালিশ মানলেও মজনু মিয়া তা মানতে চাননা। সর্বশেষ গত দু দিন আগে আবারও সালিশ বৈঠক বসেও তা নিস্পত্ত্বি করা যায়নি। ঘটনার দিন সকালে মজনু মিয়ার লোকজন কালা মিয়ার বাড়িতে অতর্কিত হামলা চালায়। হামলাকারিরা কালা মিয়ার পক্ষের লোকজনের ২০/২৫টি বাড়িঘর ভাংচুর করে লোটপাট চালায়। এ সময় বাবু ঘর থেকে বের হলে তারা বাবুর বুকে ছুরিকাঘাৎ করে। মুমুর্ষ অবস্থায় ভাগলপুর মেডিকেল হাসপাতালে নিলে ঐখানে চিকিৎসাধিন অবস্থায় তার মৃত্যু ঘটে। হামলায় উভয় পক্ষের আরো বেশ কয়েকজন গুরতর আহত হয়। আহতরা বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধিন আছে।
নিহত মোলায়েম হোসেন বাবুর মা মালেকা বেগম বলেন, অনলাইন ফেসবুক পেইজ জুয়েল স্বাধীন বাংলা ভিডিওতে বলেন, আমার ছেলেকে প্রতিপক্ষের কালা মিয়ার ছেলে শাহ আলম ফাতারে গাই মেরে আমার ছেলেকে রক্তাক্ত জখম করে পরে আহত অবস্থায় তাকে দ্রুত ভাগলপুর জহিরুল ইসলাম মেডিকেলে নিয়ে গেলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষনা করেন।
অথচ ঘটনার পরের দিন নিহত মোলায়েম হোসেন বাবুর বাবা বাদী হয়ে ভৈরব থানায় একটি মামলা দায়ের করে মামলা নং ২৯ তারিখ ১৫/০৬/২০২১ইং উক্ত মামলার এজাহারে উল্লেখ্য করে যে ২নং বিবাদী মৃত আঃ মালেক মিয়ার ছেলে ইউপি মেম্বার গোলাবর বল্লম দিয়ে বাম হাতের বগলের নিচে স্বজুরে ঘাই মারিয়া গুরতর রক্তাক্ত ছিদ্রযুক্ত জখম করে।
এব্যাপারে ইউনিয়ন পরিষদ এর মেম্বার গোলাবর মুঠোফোনে বলেন, এই ঘটনার জের ধরে নিহত বাবুর বাবা কালা মিয়া আমার বিরুদ্ধে উদ্দেশ্যমূলক ভাবে আমাকে তার ছেলের হত্যা মামলার ২নং আসামী করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন অথচ ঘটনার সময় আমি আমার নিজ গৃহে গুমিয়ে ছিলাম পরে চিল্লাচিল্লি শুনে ঘটনা জানতে চাইলে লোকজন বলাবলি করছে যে কালা মিয়ার ছেলে বাবুকে ঘাই মারিয়া রক্তাক্ত জখম করেছে পরে পূর্বশ্রত্রুতার জেরধরে নিহত বাবুর বাড়ীর লোকজন আমার দিকে দলবল নিয়ে এসে আমাকে প্রাণে মেরে ফেলার হুমকি দেয় পরে আমি পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না থাকায় আমি ঢাকায় চলে আছি। পরে স্থানীয় লোকজন আহত বাবু কে ভাগলপুর জহিরুল ইসলাম মেডিকেল নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত বলে ঘোষনা করে। পরে নিহত বাবুর লাশ বাড়িতে নিয়ে আসলে, নিহত বাবুর বাড়ির লোকজন প্রথম দিনে প্রতিপক্ষ মজলু মিয়ার বাড়ি লোকজনের প্রায় ২০/২৫টি বাড়িঘর ভাংচুর করে পরের দিন পূনরায় প্রায় ৫০/৬০জন লোক নিয়ে আমার বাড়িতে হামলা করে বাড়ীঘর ফার্নিচার ও আসবাবপত্র ভাংচুর করে এবং টাকা পয়সা সর্বস্ত্র লুট করে নিয়ে যায় নিহত বাবুর পিতা কালা মিয়ার পক্ষের লোকজন।
এব্যাপারে হত্যা মামলার ৪১ নং আসামী আল আমিন ও ৪২ নং আসামী আলকাছ বলেন, উক্ত ঘটনার বিষয়ে আমরা শুরুতে কিছুই জানিনা আমরা এলাকায় ছিলাম না পরে বাড়ি থেকে খবর আসে যে আমাদের গ্রামের কালা মিয়ার ছেলে বাবুকে মজলু মিয়ার লোকজন ঘাই মারিয়া মেরে ফেলেছে। পরের দিন মামলার এজাহারে দেখতে পাই আমরা দুই ভাই কে পূর্বশ্রুত্রুতার জের ধরে উক্ত হত্যা মামলার ৪১/৪২ নং আসামী করেছে উক্ত মামলায় আমাদের আসামী করায় এর আমরা হতবাগ এবং নিরপায় উক্ত মামলা থেকে আমাদের নাম প্রত্যাহারের জন্য বিশেষ আবেদন জানাচ্ছি মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তাও নিকট।
এ ব্যাপারে গজারিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার বলেন, তাদের মধ্যে দীর্ঘদিন যাবত জায়গা জমি নিয়ে বিরোধ চলছিল। এ বিষয়ে আমরা বেশ কয়েকবার সালিশী বৈঠক করেছি , কিন্তু কোন সুরাহা করা যায়নি। গত পরশূদিনও সালিশ হয়েছে। মজনু পক্ষ রায় মানতে নারাজ বলে আমরা তখনই ধারণা করেছিলাম। আজ সকালে মজনু মিয়ার পক্ষের লোকজন কালা মিয়ার ছেলে বাবুকে ছুড়ি দিয়ে হত্যা করে।
ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মো ঃ শাহিন জানান, জায়গা জমি নিয়ে তারা চাচাতো জেঠাতো ভাইয়ের মধ্যে ঝামেলা চলছিল। ঘঁনারদিন সকাল ৮টার দিকে তাদের মধ্যে মারামারি হয়। মারামারিতে এক পক্ষের বাবু আঘাত প্রাপ্ত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসাধি অবস্থায় মারা যায় বলে জানতে পারি এবং সাথে সাথে ঘটনাস্থলে পুলিশ প্রেরণ করি। বাবুর হত্যাকান্ডে একটি হত্যা মামলা দায়ের করে। বর্তমানে পরিস্থিতি স্বাভাবিক আছে।

অনলাইন ফেসবুক পেইজ জুয়েল স্বাধীন বাংলা ভিডিও লিংক https://www.facebook.com/jowelsadinbangla/videos/347941253349075

এই বিভাগের আরও খবর

Categories

All rights reserved © SA News 24 BD 2020-2021
Theme Development By TechMas