ভৈরবে ইলিশ মাছ শিকারের অপরাধে ৫ জেলেকে অর্থ দন্ড॥ কারেন্টজাল ও ইলিশ জব্দ

শামীম আহমেদ:
ভৈরবের মেঘনা নদী থেকে সরকারী নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে ইলিশ মাছ শিকার করার দায়ে পাঁচ জেলেকে ৫ হাজার টাকা করে অর্থ দন্ড করেছে ভ্রাম্যমান আদালত। ১৯ অক্টোবর সোমবার দুপুরে ভৈরব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট লুবনা ফারজানা নেতৃত্বে পরিচালিত ভ্রাম্যমান আদালত এই অর্থ দন্ড প্রদান করেন।

এরআগে ১৯ অক্টোবর সোমবার সকালে মেঘনা নদীর পৌর এলাকার কালিপুর, আগানগর ইউনিয়নের টুকচানপুর ও খলাপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে আব্দুল মোতালেব, ফারুক মিয়া, মজলু মিয়া, আবুল কাসেম ও সিজান মিয়া নামের ওই পাঁচ জেলেকে আটক করে উপজেলা মৎস্য বিভাগ পরিচালিত একটি টিম।

ভৈরব নৌ পুলিশের সহযোগিতায় অভিযানটি পরিচালনা করেন সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. লতিফুর রহমান। এ সময় নদীতে পেতে রাখা এক লাখ মিটার কারেন্টজাল এবং শিকার করা ১৫ কেজি মা ইলিশ ও জাটকা জব্দ করা হয়।

জব্দকৃত জালগুলি ভ্রাম্যমান আদালতের নির্দেশে বিচারকের উপস্থিতিতে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয় এবং মাছগুলি উপজেলার শিবপুর ইউনিয়নের ছনছাড়া এতিমখানায় দেওয়া হয়।

এ সময় নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা লুবনা ফারজানা সাংবাদিকদের জানান, ইলিশের প্রজনন বৃদ্ধির ল্েয ১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত চলমান এই নিষিদ্ধ সময়ে যারাই আইনভঙ্গ করবেন, তারাই শাস্তির মুখোমুখি হবেন।

এই বিষয়ে জানতে চাইলে সিনিয়র উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. লতিফুর রহমান জানান, ১৪ অক্টোবর থেকে আগামী ৪ নভেম্বর, এই ২২দিন ইলিশের প্রধান প্রজনন মৌসুম। এই সময়ে নদী থেকে ইলিশ আহরণে সরকার নিষেধাজ্ঞা জারি করেছেন। সেকারণে ভৈরবে এক হাজার জেলের প্রত্যেককে ২০ কেজি করে চাল বরাদ্ধ দেওয়া হয়েছে। এই সময়ে যারা আইন লঙঘন করবেন, তারা মৎস্য সংরণ আইনের ধারায় শাস্তি ভোগ করবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »