ভৈরবে গৃহবধূ রিয়াকে হত্যা করে ফাঁসি ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ স্বজনদের

শামীম আহমেদ:

কিশোরগঞ্জের ভৈরব পৌর এলাকার কমলপুর গ্রামের সরকার বাড়ীর নিজ বাসা থেকে গত ২৮ সেপ্টেম্বর সোমবার রাতে রিয়া (৩৫) নামে এক গৃহবধূর মৃতদেহ উদ্ধার করেছে ভৈরব থানা পুলিশ। নিহতের মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ২৯ সেপ্টেম্বর মঙ্গলবার সকালে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করেন । নিহত গৃহবধূর মৃত্যু নিয়ে স্বামীর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে গৃহবধূ রিয়াকে হত্যা করে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে রাখার অভিযোগ স্বজনদের । আসলে এটি আত্বহত্যা না কি সম্পত্তির লোভে তাকে শ্বশুর বাড়ির লোকজন হত্যা করে ফাসিঁতে ঝুলিয়ে আত্বহত্যা বলে চালিয়ে দিচ্ছে । এ মৃত্যু নিয়ে এলাকায় শ্বশুর বাড়ির লোকজন ও নিহতের বাবার বাড়ির লোকজনের মধ্যে চলছে মত- দ্বিমত । শ্বশুর বাড়ির লোকজনের দাবি ৪/৫ বছর পূর্বে নিহতের স্বামী সোহাগ মিয়া সড়ক দূর্ঘটনায় মারা গেছে। তাদের পরিবারে ২ টি সন্তান রয়েছে। সংসারের ভরণ-পোষণ নিয়ে দুঃশ্চিন্তায় এবং হতাশায় রিয়ার দিন কাটতো। আর এ হতাশা থেকই সে আত্বহত্যা করেছে। কিন্ত নিহতের ভাই ও স্বজনরা জানান, স্বামীর মৃত্যুর পর তাকে বাড়ি থেকে বের করে দিতে শ্বশুর বাড়ি লোকজন নানাভাবে তাকে শারীরিক ও মানসিকভাবে নির্যাতন করছে। গত সোমবার তারা তাকে পিটিয়ে হত্যা করে মরদেহ ফাসিতেঁ ঝুলিয়ে আত্বহত্যা বলে অপপ্রচার চালাচ্ছে।
এব্যাপারে রিয়ার জানাযা নামাজে রিয়ার বাবার বাড়ীর লোকজন অভিযোগ এনে বলেন, রিয়া কে তার স্বামীর বাড়ীর লোকজন সম্পত্তি ভুগদখল করার জন্য পরিকল্পীত হত্যা করেছে বলে অভিযোগ এনে দোষীদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করবেন বলে জানান এবং দোষীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবী জানান এবং ভৈরব প্রেসক্লাবে ও আশুগঞ্জ প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন এবং ভৈরব দুর্জয় মোড়ে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পার্শ্বে মানববন্ধন করবেন বলে জানান।
তাছাড়া রিয়ার মা অভিযোগ করেন, আমার মেয়েকে প্রায়ই শুশুর বাড়ীর ননদ ও বাসর এবং জালসহ স্বামীর পরিবারের লোকজন সম্পত্তি ভুগদখল করার জন্য অত্যাচার করতো এবং এব্যাপারে স্থানীয় কাউন্সিলর ভৈরব পৌরসভার ৪নং ওয়ার্ডের নজরুল ইসলাম সরকারের নিকট বিচার প্রার্থী হয়েছি অনেক বার তিনি মিমাংসা করে দেওয়ার পর পূনরায় অত্যচার করতো। এভাবেই চলছিলো আমার মেয়ে রিয়ার সংসার।
এ বিষয়ে ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন জানান, গৃহবধূ রিয়ার মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য ২৯ সেপ্টেম্বর সকালে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে মর্গে প্রেরণ করা হয়েছিলো পরে তাকে পোস্টমর্টেম করে রিয়ার বাবা বাড়ী বি-বাড়িয়া জেলার আশুগঞ্জ উপজেলার চর চারতলা কেসকি বাড়ীর পারিবারিক কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করেন। তিনি আরো জানান পরিবারের পক্ষ থেকে কেউ থানায় এসে এখনো লিখিত অভিযোগ দায়ের করেনি। তাছাড়া ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে জানা যাবে এটি হত্যা না আত্বহত্যা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »