ভৈরবে প্রতিপক্ষের হামলায় তাজুল ইসলাম হত্যার জের ধরে প্রতিপক্ষের বাড়ি-ঘর ভাংচুর ও লুটপাট

শামীম আহমেদ:
কিশোরগঞ্জের ভৈরব উপজেলার গজারিয়ায় প্রতিপক্ষের হামলায় তাজুল ইসলাম হত্যার জের ধরে প্রতিপক্ষের বাড়ি-ঘরে ব্যপক ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। উপজেলার গজারিয়া ইউনিয়নের মানিকদী চান্দেরচর বড় বাড়িতে এই ভাংচুর ও লুটপাট করা হয়েছে। এতে প্রায় কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী ক্ষতিগ্রস্তদের।
স্থানীয়রা জানায়, গেল ৩ মে মানিকদী চান্দেরচর গ্রামের গর্জি বাড়ির লোকজনের সাথে একই গ্রামের বড় বাড়ির লোকজনের সংর্ঘষ হয়। এতে উভয় পক্ষের প্রায় ২০ জন আহত হয়। আতদের মধ্যে গর্জি বাড়ির তাজু মিয়া (৫০) নামে এক ব্যাক্তি গুরুতর আহত হলে প্রথমে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে উন্নত চিকিৎসার জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। হাসপাতালে তাজু মিয়া নিহতের খবর এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে গর্জি বাড়ির লোকজন বড় বাড়িতে হামলা চালিয়ে দু’টি পাকা ভবণসহ ২০টিরও বেশি বসত ঘওে ব্যপক ভাংচুর ও লুটপাট করে। এতে এক কোটি টাকার ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে বলে দাবী করেছেন ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারগুলোর। এছাড়াও হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার এড়াতে বড় বাড়ির পুরুষ সদস্যরা গ্রাম ছাড়া থাকার কারণে গর্জি বাড়ির লোকজন প্রতিরাতে ভাংচুর করছে। এমন কি নারীদের অশালীন ভাষায় গাল মন্দসহ নানাভাবে ভয়ভীতি দেখিয়ে চাদাঁ দাবি করছে। ক্ষতিগ্রস্তদের অভিযোগ দাবীকৃত চাদারঁ টাকা না দেয়ায় বাড়ি-ঘরে ফের ভাংচুরের তান্ডব চালানো হয়েছে। শুধু তাই নয়, বাড়ি থেকে শিশুসহ নারীদের জোড় পূর্বক বের করে দেয়া হয়েছে। এদিকে নিহত তাজু মিয়ার স্ত্রী ও তার সন্তানরা অভিযোগ অস্বীকার করে হত্যার বিচার দাবী করেন।
এ ব্যপারে গজারিয়া ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম সারোয়ার জানান, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে গর্জি বাড়ি ও বড় বাড়ি লোকজনের মধ্যে সংঘর্ষে তাজু মিয়া নামে একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। ফলে বেশ কিছু বাড়ি-ঘরে ভাংচুরের ঘটনা ঘটেছে।
এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ভৈরব থানার ওসি মোহাম্মদ শাহিন জানান, চান্দেরচর গ্রামে দু’টি পক্ষের লোকজনের সংঘর্ষে বেশ কয়েকজন আহত এবং একজন চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন। এছাড়াও বাড়ি-ঘর ভাংচুর ও লুটপাটের ঘটনায় উভয় পক্ষের লোকজন একাধিক মামলা দায়ের করেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »