ভৈরবে প্রবাসী ভগ্নিপ্রতি মোঃ জামাল মিয়ার বিরুদ্ধে ব্যবসায়ী মোঃ লিটন মিয়ার পাল্টা অভিযোগ দিয়ে সংবাদ সম্মেলন

শামসুল হক মামুনঃবার্তা সম্পাদক।

গত ৮ ডিসেম্বর রাত ৯ টায় মোঃজামাল মিয়া আমার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনে যা বলেছেন তা সঠিক নয়,সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানেয়াট।

আজ ১১ ডিসেম্বর রাত ৯ টায় বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম ভৈরব উপজেলা শাখায় মোঃ লিটন মিয়া তার লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের কে বলেন আমার নিকট ১১ বছরের দোকান
ভাড়া বাবদ ২২,০০,০০০/ (বাইশ লক্ষ) টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন।

যে সকল কথা বলিয়াছেন জামাল মিয়া তা মিথ্যা,সঠিক তদন্ত করলে সত্যকথা বেরিয়ে আসবে,আমার কাছে সকল প্রমাণ আছে, তাই আমি তার সঠিক বিচার চাই।

আমার কাছে কোন টাকা পাওনা নেই বরং আমি মােঃ লিটন মিয়া, জামাল মিয়ার নিকট উল্টো আরাে ২৯,৭১,০০০/- (উনত্রিশ লক্ষ একাত্তর হাজার) টাকা আমি পাওনা আছি।

মােঃ জামাল মিয়া বিদেশ লােক পাঠালে, আমি মােঃ লিটন মিয়া (মােঃ জামাল মিয়া
আমার ভগ্নিপতি হওয়ায়) তাদের টাকার জামিনদার হই।পরবর্তীতে জানতে পারি মােঃজামাল মিয়া জাল ভিসার মাধ্যমে বিদেশে লােক পাঠিয়েছে।সে সূত্রে ভুক্তভােগীরা আমার নামে মানব পাচার মামলা করে।

উক্ত মামলায় আমার আড়াই বছরের সাজা হলে আমি জামিনে বের হয়ে আসি বর্তমানে মামলাটি চলমানাধীন। মিথ্যা ও বানােয়াট কথা বলেছেন সংবাদ সম্মেলনে।

এ সকল কথা বলায় আমার মান সম্মান নষ্ট হয়েছে আমি তার সঠিক বিচার চাই
সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি মিথ্যা কথা সংবাদ সম্মেলনে বলায়

আমার বোন পারভিন বেগমকে মারধর করে মিথ্যা বলতে বাধ্য করা হয়েছে আমার বোন জামাই মোঃজামাল মিয়া অন্য নারীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে তার প্রমাণ আছে আমার কাছে,আমার বোন পারভিন বেগম তার নির্যাতনের শিকার হয়ে ২বার বিষপান করেন।

আমার ভগ্নিপতি মোঃ জামাল মিয়া তার বাবা বরণ পোষন করেন না বিশ্বাস না হলে তিনি উপস্থিত রয়েছে জিগাসা করে দেখেন।

মোঃ জামাল মিয়ার পিতা মোঃনান্দু মিয়া বলেন আমার ছেলে মোঃ জামাল মিয়া তার বউয়ের বড় ভাইয়ের নামে যা বলেছে এগুলো সত্য নয় মিথ্যা বলেছে সে ২ বছর যাবত আমাকে কোন টাকা পয়সা দেয় না আমার জমি জামাল আরেক জনের কাছে বন্ধক দিয়ে দিছে।

বিদেশের দালালী করে লোক পাঠায় এগুলো নিয়ে ঝামেলা হয়ছে অনেক লিটন মিয়া জেল খাটতে হয়েছে।

মোঃ লিটন মিয়ার চাচাত ভাই বলেন আমরা দরবারে বোনেী সংসার ভালো রাখার সার্থে লিটন বুঝিয়ে সব পাওনা টাকা কিছু টাকা ও কালিকা প্রসাদের দোকান গুলো লিখে দিয়ে পাওনা টকা পরিশোধ করবে।

মোঃ জামাল মিয়া বলেন আমি দোকান লিখে দেয়ার কথা বললে সে নানা অজুহাত তুলে ধরে ঝামেলা সৃষ্টি করে সে বলেছে তাকে মারার হুমকি ও লোক পাঠিয়েছি বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা।

এবিষয়ে মোঃ জামাল মিয়া ও তার স্ত্রী পারভিন বেগম এর নিকট জানতে চাইলে তারা জানান লিটন মিয়া সংবাদ সম্মেলনে যা বলেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা,আমার দরবারী, সাক্ষীগণ সহ আমার কাছে রক্ষিত ডকোমেন্ট তা প্রমাণ করবে।

শামসুল হক মামুনঃবার্তা সম্পাদক। গত ৮ ডিসেম্বর রাত ৯ টায় মোঃজামাল মিয়া আমার বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলনে যা বলেছেন তা সঠিক নয়,সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানেয়াট। আজ ১১ ডিসেম্বর রাত ৯ টায় বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম ভৈরব উপজেলা শাখায় মোঃ লিটন মিয়া তার লিখিত বক্তব্যে সাংবাদিকদের কে বলেন আমার নিকট ১১ বছরের দোকান ভাড়া বাবদ ২২,০০,০০০/ (বাইশ লক্ষ) টাকা আত্মসাতের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন। যে সকল কথা বলিয়াছেন জামাল মিয়া তা মিথ্যা,সঠিক তদন্ত করলে সত্যকথা বেরিয়ে আসবে,আমার কাছে সকল প্রমাণ আছে, তাই আমি তার সঠিক বিচার চাই। আমার কাছে কোন টাকা পাওনা নেই বরং আমি মােঃ লিটন মিয়া, জামাল মিয়ার নিকট উল্টো আরাে ২৯,৭১,০০০/- (উনত্রিশ লক্ষ একাত্তর হাজার) টাকা আমি পাওনা আছি। মােঃ জামাল মিয়া বিদেশ লােক পাঠালে, আমি মােঃ লিটন মিয়া (মােঃ জামাল মিয়া আমার ভগ্নিপতি হওয়ায়) তাদের টাকার জামিনদার হই।পরবর্তীতে জানতে পারি মােঃজামাল মিয়া জাল ভিসার মাধ্যমে বিদেশে লােক পাঠিয়েছে।সে সূত্রে ভুক্তভােগীরা আমার নামে মানব পাচার মামলা করে। উক্ত মামলায় আমার আড়াই বছরের সাজা হলে আমি জামিনে বের হয়ে আসি বর্তমানে মামলাটি চলমানাধীন। মিথ্যা ও বানােয়াট কথা বলেছেন সংবাদ সম্মেলনে। এ সকল কথা বলায় আমার মান সম্মান নষ্ট হয়েছে আমি তার সঠিক বিচার চাই সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে তীব্র নিন্দা জানাচ্ছি মিথ্যা কথা সংবাদ সম্মেলনে বলায় আমার বোন পারভিন বেগমকে মারধর করে মিথ্যা বলতে বাধ্য করা হয়েছে আমার বোন জামাই মোঃজামাল মিয়া অন্য নারীর সাথে অবৈধ সম্পর্ক রয়েছে তার প্রমাণ আছে আমার কাছে,আমার বোন পারভিন বেগম তার নির্যাতনের শিকার হয়ে ২বার বিষপান করেন। আমার ভগ্নিপতি মোঃ জামাল মিয়া তার বাবা বরণ পোষন করেন না বিশ্বাস না হলে তিনি উপস্থিত রয়েছে জিগাসা করে দেখেন। মোঃ জামাল মিয়ার পিতা মোঃনান্দু মিয়া বলেন আমার ছেলে মোঃ জামাল মিয়া তার বউয়ের বড় ভাইয়ের নামে যা বলেছে এগুলো সত্য নয় মিথ্যা বলেছে সে ২ বছর যাবত আমাকে কোন টাকা পয়সা দেয় না আমার জমি জামাল আরেক জনের কাছে বন্ধক দিয়ে দিছে। বিদেশের দালালী করে লোক পাঠায় এগুলো নিয়ে ঝামেলা হয়ছে অনেক লিটন মিয়া জেল খাটতে হয়েছে। মোঃ লিটন মিয়ার চাচাত ভাই বলেন আমরা দরবারে বোনেী সংসার ভালো রাখার সার্থে লিটন বুঝিয়ে সব পাওনা টাকা কিছু টাকা ও কালিকা প্রসাদের দোকান গুলো লিখে দিয়ে পাওনা টকা পরিশোধ করবে। মোঃ জামাল মিয়া বলেন আমি দোকান লিখে দেয়ার কথা বললে সে নানা অজুহাত তুলে ধরে ঝামেলা সৃষ্টি করে সে বলেছে তাকে মারার হুমকি ও লোক পাঠিয়েছি বিষয়টি সম্পূর্ণ মিথ্যা। এবিষয়ে মোঃ জামাল মিয়া ও তার স্ত্রী পারভিন বেগম এর নিকট জানতে চাইলে তারা জানান লিটন মিয়া সংবাদ সম্মেলনে যা বলেছে তা সম্পূর্ণ মিথ্যা,আমার দরবারী, সাক্ষীগণ সহ আমার কাছে রক্ষিত ডকোমেন্ট তা প্রমাণ করবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »