ভৈরবে মাদক ব্যবসায়ী সোহরাব ও কৃষক খোকন নামে দুই জন খুন : নেপথ্যে মাদক

শামীম আহমেদ:
ভৈরবে মাদকের টাকা ভাগ বাটোয়ারা ও মাদক ব্যবসায়ী কে র‌্যাবে ধরিয়ে দেয়ায় আলাদা ঘটনায় গত বৃহস্পতিবার রাতে ও সকালে মাদক ব্যবসায়ী সোহরাব ও কৃষক খোকন নামে দুই জন খুন হয়েছে । ভৈরব থানা পুলিশ খোকনের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে । এছাড়া সোহরাবের মরদেহ ঢাকা থেকে এখনো এলাকায় পৌঁছেনি ।
নিহতের পারিবারের সদস্যরা জানায় ভৈরব পৌর এলাকার কালিপুর গ্রামের মোতালিব মিয়ার ছেলে সোহরাব কে একই এলাকার মাদক ব্যবসায়ী হান্নান ও উজ্জল বাড়ি থেকে পার্শ্ববর্তী রামশংকর পুরে ডেকে নিয়ে যায় । পরে সেখানে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে তাকে পিছন থেকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে । এ সময় স্থানীয়রা তাকে আহত অবস্থায় প্রথমে ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ও পরে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন । নিহতের স্বজনরা আরো জানায় গত ২ মাস আগে হান্নানকে সোহরাব মাদকসহ র‌্যাবে ধরিয়ে দেয়ায় এ হত্যাকান্ড ঘটিয়ে সোহরাবের কাছ থেকে নগদ ৩ লাখ টাকা ছিনিয়ে নিয়ে যায় । এক প্রশ্নের উত্তরে তার স্বজনরা স্বীকার করেন যে সোহরাব আগে মাদক ব্যবসা করলেও বর্তমানে সে মাদক ব্যবসা করেনা ।
এখন সে মুদি দোকানদারী করে । অন্যদিকে ভৈরব উপজেলার শ্রী-নগর ইউনিয়নের শ্রী-নগর উত্তরপাড়া গ্রামের শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী মুসা ও তার ভাই স্বপন মাদকের টাকার ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে গত মঙ্গলবার দুই ভাইয়ের মাঝে সংঘর্ষ হয় । এ সময় সংঘর্ষ থামাতে খোকন এগিয়ে এলে ইটের ছোড়া আঘাতে সে গুরুতর আহত হয় । পরে ঢাকা লাল মাটিয়ায় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত বৃহস্পতিবার সে মারা যায় তবে এলাকাবাসিরা জানায়, শ্রী-নগরের শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী মুসা (৩০ ) ও তার ছোট ভাই স্বপন (২৮) দুই জনই ইয়াবা ব্যবসায়ী দীর্ঘদিন ধরে তারা মাদকের ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন । গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় মাদকের টাকার ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে দুই ভাইয়ের মাঝে নিজ বাড়িতে সংঘর্ষ হয় । এ সময় খোকন ঝগড়া থামাতে গেলে এক পর্যায়ে তার মাথায় ইটের ছোড়া ঢিল পড়ে । পরে তাকে আহত অবস্থায় ভৈরব উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্রেক্সে নিয়ে এলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার্ড করেন । কিন্ত তারা আহতকে ঢাকা লালমাটিয়ায় একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করে । পরে গত বৃহস্পতিবার সকালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সে মারা যায় । পরে বিষয়টি পারিবারিকভাবে আপোষ মিমাংসার কথা বলে মরদেহ ময়নাতদন্ত ছাড়াই পরিবারের লোকজন দাফনের প্রস্তুতি নেয় । খবর পেয়ে গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ভৈরব থানা পুলিশ মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য থানায় নিয়ে যায়।
এ বিষয়ে মুসার সাথে মোঠো ফোনে কথা হলে তিনি নিজেকে শ্রী-নগর ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি দাবি করে বলেন আগে মাদক ব্যবসা করলে ও এখন তিনি মাদক ব্যবসা করেন না । তবে তার নামে ৪টি মাদকের মামলা রয়েছে স্বীকার করে তিনি আরো বলেন, মাদকের টাকা ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে নয় । বাড়ি নির্মাণের খরচের টাকা নিয়ে দুই ভাইয়ের মাঝে তর্ক বিতর্ক হয়েছে । এ সময় বিল থেকে মাছ ধরছিল খোকন । পরে সে এগিয়ে এলে ঘরের চালার উপর থেকে তার মাথায় ইট পড়ে সে আহত হয়ে আজ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় । এ বিষয়ে ভৈরব উপজেলার শ্রী-নগর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সার্জেন্ট (অবঃ) তাহের জানান, মুসা ও তার ভাই এলাকার চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ী । শোনেছি মাদকের টাকা ভাগ বাটোয়ারা নিয়ে ২ ভাইয়ের মাঝে সংঘর্ষ চলাকালে খোকন নামে ১ জন ইটের ছোড়া ঢিলের আঘাতে আহত হয়ে আজ চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে। এ বিষয়ে ভৈরব থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ শাহিন জানান, মুসা মাদক ব্যবসায়ী তাকে ধরে এর আগে আমরা জেল হাজতে প্রেরণ করেছি । তবে শোনেছি দুই ভাইয়ের মাঝে সংঘর্ষ চলাকালে খোকন নামে এক জন আহত হয়ে আজ গত (বৃহস্পতিবার )চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছে । আমরা লাশ ময়নাতদন্তের জন্য কিশোরগঞ্জ মর্গে প্রেরণ করবো । তবে এখনো পর্যন্ত এ ঘটনায় ভৈরব থানায় কেউ লিখিত অভিযোগ দেয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »