ভৈরবে ৫ বছরের শিশু ধর্ষণকারী আজিজুল ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতার

সোহানুর রহমান(সোহান) বিশেষ প্রতিনিধি:
ভৈরবে ৫ বছরের শিশু ধর্ষণকারী আজিজুল (১৯) কে গত রবিবার ভৈরব থানা পুলিশ গ্রেফতার করে তাকে কিশোরগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে জবানবন্দী গ্রহণের জন্য পাঠিয়েছেন জানান ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদ শাহিন।
উল্লেখ্য: গত ৪ জুন বৃহস্পতিবার ভৈরবে শিবপুর ইউনিয়নে শম্ভুপুর গ্রামে শান্তিপাড়া এলাকায় লুডু খেলার কথা বলে ডেকে পাঁচ বছরের শিশু মেয়ে কে ধর্ষণ করার অভিযোগ পাওয়া যায়। প্রাথমিকভাবে শিশু শরীলে যৌন নির্যাতনের আলামত পাওয়া গেছে বলে নিশ্চিত করেন উপজেলা স্ব্যস্থ্য বিভাগ। পরে শিশুটিকে পরীক্ষা -নিরিক্ষা ও উন্নত চিকিৎসার জন্য শিশুটি কে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে পাঠানো হয়। এর পূর্বে গত শুক্রবার রাত্রে শিশুটির বাবা বাদী হয়ে স্থানীয় কুদ্দুছ মিয়ার ছেলে আজিজুলের বিরুদ্ধে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনে ভৈরব থানায় একটি মামালা দায়েল করেন।
গত শনিবার দুপুরে ভৈরব থানার এস আই মতিউজ্জামান সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে অভিযান চালিয়ে ওই অভিযোক্ত কিশোর কে গ্রেফতার করেন। মামালা ও ভূক্তভূগীর পরিবারসূত্রে জানা যায়, গত ৪ জুন বৃহস্পতিবার বিকালে লুডু খেলার কথা বলে প্রতিবেশী আজিজুল নামের এক যুবক পাঁচ বছরের শিশু মেয়েকে নিজ ঘরে ডেকে নিয়ে শিশুটির উপর যৌন নির্যাতন চালায়। পরে রাত্রে ঘুমানো সময় শিশুটি ব্যাথায় কান্না কাটি শুরু করলে শিশুটি মা কি হয়েছে জানতে চাইলে শিশুটি ঘটনার বর্ণনা দেয় এসময় ভোক্তভোগীর মা বিষয়টি তাৎক্ষণিক তার স্বামীকে অবগত করেন। পরে ভোক্তভোগীর বাবা অভিযোক্ত আজিজুলের বাবা কুদ্দুছ ও মা হাসিনা বেগম কে বিষয়টি জানালে তারা বিষয়টি গুরুত্ব দেয়নি। পরবর্তীতে চিকিৎসার জন্য শিশুটিকে নিয়ে যাওয়া হয়। স্থানীয় একটি বেসরকারি হাসপাতালে সেখান থেকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক ডাঃ সাদিয়া সুলতানা শিশুটিকে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতলে প্রেরণ করেন এরই মধ্যে ঘটনার খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক হাসপালে পৌঁছে লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের অশ্বাস দেন ভৈরব থানা পুলিশ।
এ বিষয়ে গতকাল রবিবার এক সংবাদ সম্মেলনে ভৈরব থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোঃ শাহিন সাংবাদিকদের জানান পাঁচ বছরের শিশু ধর্ষণের বিষয়ে গত ৪ জুন থানায় মামলা দায়ের করা হয়। ভোক্তভোগী মেয়েটিকে কিশোরগঞ্জ হাসপাতালে চিকিৎসা জন্য প্রেরণ করা হয়। সেই সাথে অভিযুক্ত আসামী আজিজুল কে ধরতে তাৎক্ষণিক আমরা অভিযান চালায় এবং ২৪ ঘন্টার মধ্যে আমরা শম্ভুপুর রেলক্রসিং থেকে আজিজুল কে ধরতে সক্ষম হয়। আসামী আজিজুল পুলিশের কাছে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে ধর্ষণের কথা স্বীকার করেছে। অভিযুক্ত আজিজুল কে কিশোরগঞ্জ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট (২নং আমলী মোহাম্মদ রফিকুলবারীর আদালতে জাবানবন্ধী প্রদান করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »