July 25, 2021, 2:50 am
শিরোনাম :
পরকীয়ায় জড়িয়ে প্রবাসী স্বামীর পাঠানো ৩৫ লাখ টাকা আত্মসাতের মামলায় স্ত্রী গ্রেফতার সংগীত শিল্পী ফকির আলমগীরের মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভৈরব পৌর সেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি হাবিবুর রহমান হাবিবের মৃত্যুতে ভৈরবে শোকের ছায়া ভৈরবে  প্রতি বছরের ন্যায় ১ হাজার এতিম,অসহায় দুঃস্থ পরিবারের মাঝে কোরবানীর মাংস বিতরন ভৈরবে নবযোগদানকৃত উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) কে ফুলেল শুভেচ্ছা জানিয়ে বরুণ অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে ঢাকা-টাঙ্গাইল-বঙ্গবন্ধু সেতু মহাসড়ক রাতে যানজট, দিনে ফাঁকা ভৈরব এর একটি পশ্চাদপদ এলাকা “জোয়ানশাহী হাওর” প্রধানমন্ত্রীর খাদ্য সহায়তা পেল ভৈরবের সার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের  শ্রমিক কর্মচারীরা ভৈরবে পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদ এর ২য় মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে দোয়া মাহফিল ও আলোচনাসভা ভৈরবে আওয়ামীলীগ নেতাদের অর্থায়নে অসহায় মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ

ভৈরব এর একটি পশ্চাদপদ এলাকা “জোয়ানশাহী হাওর”

শামীম আহমেদ
  • আপডেটের সময় : Saturday, July 17, 2021
  • 366 দেখেছেন:
" ভৈরব এর একটি পশ্চাদপদ এলাকা "জোয়ানশাহী হাওর", তখৎ উন্নয়নে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে সরকারের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ" সময়োপযোগী একটি গণদাবী

” ভৈরব এর একটি পশ্চাদপদ এলাকা “জোয়ানশাহী হাওর”, তখৎ উন্নয়নে যথাযথ পদক্ষেপ নিতে সরকারের উর্ধতন কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ” “”””””””””””””””””””””'”””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””””” ****** ( সময়োপযোগী একটি গণদাবী) *******

আসসালামু আলাইকুম, ভৈরব উপজেলাধীন জোয়ানশাহী হাওড়ের নাম আমরা সকলেই বহু পূর্ব হতে শুনে এসেছি । এই হাওড় কে কেন্দ্র করেই এর চতুর্দিকে গড়ে উঠেছে বিভিন্ন গ্রাম যেমন – মৌটুপী, সেরবাজ, মনোহরপুর, সাদেকপুর, মেন্দিপুর,রসুলপুর, মোহাম্মদপুর,মন্জুরনগর ও পার্শবর্তী শ্রীনগর ইউনিয়ন এলাকার ভবানীপুর, বধুনগর ,জাফরনগর এবং আগানগর ইউনিয়নের লুন্দিয়া,খলাপাড়া,চরপাড়া ও আগানগর গ্রাম। এরই পাশা পাশি রয়েছে কুলিয়ারচর উপজেলা ও বাজিতপুর উপজেলা অপরদিকে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল, নাসিরনগর ও আশুগঞ্জ উপজেলা। মেঘনা নদীর তীরবর্তী হওয়ায় ভৈরব বাজার সহ পার্শবর্তী অঞ্চলের সাথে চমৎকার নৌচলাচলের জলযোগাযোগ ব্যবস্থা অব্যাহত আছে। শুকনো মৌসুমে যদিও আমরা এক গ্রাম থেকে অন্য গ্রামে এই হাওরের মধ্য দিয়ে সহজে যোগাযোগ করতে পারি কিন্তু বর্ষাকালে পানিবন্দি হওয়ার কারণে আমরা নৌকা ছাড়া অতি সহজে একে অপরের সাথে যোগাযোগ করতে পারি না। যদিও এখন জাফর নগর থেকে ভবানীপুরের রাস্তাটি বারমাসি হয়েছে কিন্তু জাফর নগর থেকে বধুনগর ,লুন্দিয়া ও কলাপাড়ার রাস্তাটি এখনো ছয়মাসিক রয়ে গেছে ,যদিও প্রস্তাবিত বারোমাসি হওয়ার কথা। অপরদিকে মৌটুপী গ্রামটি ও অন্যান্য পাড়া যেমন পূর্ব ও পশ্চিম সেরবাজ, মনোহরপুর, চন্দনপুর, মোহাম্মদপুর, উজিরপুর ও মেঘনা পাড়ের মন্জুর নগর এখন ও যোগাযোগ ব্যাবস্হার তেমন একটা উন্নতি সাধিত হয়নি। যদি মৌটুপী র মূল অংশ ও অন্যান্য পাড়া গুলো যুক্ত করে “মৌটুপী দক্ষিণ পাড়া উজিরপুর হতে মৌটুপী উত্তর পাড়া হয়ে মনোহরপুর, সেরবাজ হইয়া মেন্দীপুর পর্যন্ত ভায়া মন্জুর নগর” বারমাসি রাস্তা করা যেতো সেই সাথে মেঘনা নদীর পাড় দিয়ে ” লুন্দিয়া খলাপাড়া হতে মেন্দিপুর পর্যন্ত রাস্তা কাম বেড়িবাঁধ তৎসংলগ্ন হুরার খালে সুইস গেইট নির্মান” করা হলে জোয়ান শাহী হাওরের হাজার হাজার হেক্টর জমিতে ফসল উৎপাদনে দিগুণ তথা আমুল বৈপ্লবিক পরিবর্তন দেখা দিতো। বেড়িবাঁধ এ বনায়ন করে সবুজের সমারোহে অপূর্ব সুন্দর প্রাকৃতিক দৃশ্যের অবতারণা ঘটানো যেতো। জোয়ানশাহী হাওর এর গ্রাম কয়টি কে বারমাসি রাস্তা ও বেড়িবাঁধ এ বেষ্টনী দ্বারা আচ্চায়িত করতে পারলে আমাদের অত্র এলাকার সর্বসাধারণ সকলের দুঃখ কষ্ট লাঘবের পাশাপাশি একটি সুন্দর পর্যটন শিল্প ও গড়ে উঠত। তখন আমাদেরকে ভ্রমণের জন্য অষ্টগ্রাম ,ইটনা, মিঠামইন এর বিভিন্ন হাওড়ে যেতে হতো না বরং আমাদের এখানে বিভিন্ন প্রান্ত থেকে শুকনো ও বর্ষার মৌসুমে পর্যটকরা এসে ভীড় জমাতো , পাশাপাশি আমাদের অত্র এলাকার বিভিন্ন গরিব/বেকার যুবকদের কর্মসংস্থানের একটা সুন্দর ব্যবস্থা হত। তাছাড়া রাস্তা কয়টি ও বেড়ীবাঁধ বারোমাসি হলে কৃষকরা আধুনিক যন্ত্রপাতি ব্যবহার করে অতি সহজে অল্প খরচে ধান ও বিভিন্ন ফসলাদি ঘরে তুলতে পারত। যেহেতু এই হাওড়টি মেঘনা নদীর মাধ্যমে কুলিয়ারচর ,সুনামগঞ্জ, আশুগঞ্জ ও ভৈরব এর সাথে সুন্দর জল যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে, ভবিষ্যতে এই হাওড়টিকে কেন্দ্র করে বিভিন্ন শিল্প কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব। সেখানে হাজার হাজার গরিব/বেকার শ্রমিকদের কাজের নতুন করে কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। আমাদের এই জোয়ানশাহী হাওরের উন্নয়নের সাথে আমাদের ভৈরবের উন্নয়ন নিবিড় ভাবে জড়িত যেমনটা ইটনা-মিঠামইন হাওড়ের উন্নয়নের সাথে কিশোরগঞ্জ জেলার উন্নয়ন জড়িত । সরকারের জন্য এই ধরনের প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে বড় কোন বাজেটের প্রয়োজন হবে বলে মনে হয় না। শুধুমাত্র প্রয়োজন একটি সদিচ্ছার ও মনের আগ্রহ। সরকারের প্রতিনিধিত্বকারী বিশেষ করে সংসদ সদস্য, উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও অন্যান্য জনপ্রতিনিধি গন মনে করলে একটি প্রকল্প গ্রহণ করে বাস্তবায়ন করা শুধু মাত্র সময়ের ব্যাপার। ধন্যবাদ সবাইকে।

ধন্যবাদান্তে

বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ তোফাজ্জল হক সাবেক চেয়ারম্যান, সাদেকপুর ইউনিয়ন পরিষদ, মোবাইল নম্বর ঃ ০১৭১১ ৪৮৯০৬৭

এই বিভাগের আরও খবর

Categories

All rights reserved © SA News 24 BD 2020-2021
Theme Development By TechMas