সামাজিক দূরত্ব মানা লাগবে না’ ‘৪ দিনেই করোনাভাইরাস সারাবে এসটিআই-১৪৯৯ অ্যান্টিবডি, মার্কিন বায়োফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি সরেন্তো থেরাপিউটকস এ দাবি করেছে বলে জানিয়েছে ফক্স নিউজ

স্বাস্থ্য খবর ডেক্স : করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সারাতে অ্যান্টিবডি আবিষ্কারের দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফর্নিয়াভিত্তিক একটি বায়োফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি। তারা জানিয়েছে, মাত্র চার দিনে শরীরে থেকে ভাইরাসটি বের করে দিতে সক্ষম ওই অ্যান্টিবডি।

সরেন্তো থেরাপিউটকস নামের ওই প্রতিষ্ঠানের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজ জানায়, এসটিআই -১৪৯৯ অ্যান্টিবডিটি ১০০ শতাংশ কার্যকর। এটি ব্যবহারের মাধ্যমে চিকিৎসা পদ্ধতি ভ্যাক্সিন বাজারে আসার আগেই চলে আসবে।

সরেন্তো থেরাপিউটকসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সিই.ও ডা. হেনরি জি বলেন, মুক্তির উপায় আছে।“আমরা জোর দিতে চাই যে (করোনাভাইরাস থেকে) একটি সমাধান আছে যা ১০০ শতাংশ কাজ করে। আপনার শরীরে যদি অ্যান্টিবডি থাকে তাহলে আপনার সামাজিক দূরত্বের দরকারও নেই। কোনো ভয় ছাড়াই লোকজনকে মুক্তভাবে চলতে দেওয়া যাবে।”

বাজারে করোনাভাইরাসের কার্যকর ভ্যাক্সিন আসা-না আসার অনিশ্চয়তার মধ্যেই আক্রান্তদের সারাতে অ্যান্টিবডির আবিষ্কার নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। সংক্রমণ ঠেকাতে বিগত ১০০ বছরে ধরেই অ্যান্টিবডির মাধ্যমে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। যদিও সবক্ষেত্রে এই পদ্ধতি শতভাগ সাফল্য পায়নি।

সরেন্তো থেরাপিউটকসের সিইও ডা. হেনরি জি বলেন, “অ্যান্টিবডি মানব কোষে ভাইরাস প্রবেশ করতে দেয় না। তারা যদি কোষে প্রবেশ না করতে পারে, তাহলে বংশবিস্তারও করতে পারে না। এর অর্থ হলো, আমরা যদি ভাইরাস কোষে প্রবেশ করতে না দেই, তাহলে শেষ পর্যন্ত সেটির মৃত্যু ঘটবে।”

তিনি আরও বলেন, বাজারে করোনাভাইরাসের পরীক্ষিত ভ্যাক্সিন আসার আগে অ্যান্টিবডি থেরাপিই হবে সবচেয়ে কার্যকর চিকিৎসা।
পিক্সাবে

মার্কিন বায়োফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি সরেন্তো থেরাপিউটকস এ দাবি করেছে বলে জানিয়েছে ফক্স নিউজ

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ সারাতে অ্যান্টিবডি আবিষ্কারের দাবি করেছে যুক্তরাষ্ট্রের ক্যালিফর্নিয়াভিত্তিক একটি বায়োফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানি। তারা জানিয়েছে, মাত্র চার দিনে শরীরে থেকে ভাইরাসটি বের করে দিতে সক্ষম ওই অ্যান্টিবডি।

সরেন্তো থেরাপিউটকস নামের ওই প্রতিষ্ঠানের বরাত দিয়ে মার্কিন সংবাদমাধ্যম ফক্স নিউজ জানায়, এসটিআই -১৪৯৯ অ্যান্টিবডিটি ১০০ শতাংশ কার্যকর। এটি ব্যবহারের মাধ্যমে চিকিৎসা পদ্ধতি ভ্যাক্সিন বাজারে আসার আগেই চলে আসবে।

সরেন্তো থেরাপিউটকসের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ডা. হেনরি জি বলেন, “আমরা জোর দিতে চাই যে (করোনাভাইরাস থেকে) মুক্তির উপায় আছে। একটি সমাধান আছে যা ১০০ শতাংশ কাজ করে। আপনার শরীরে যদি অ্যান্টিবডি থাকে তাহলে আপনার সামাজিক দূরত্বের দরকারও নেই। কোনো ভয় ছাড়াই লোকজনকে মুক্তভাবে চলতে দেওয়া যাবে।”

বাজারে করোনাভাইরাসের কার্যকর ভ্যাক্সিন আসা-না আসার অনিশ্চয়তার মধ্যেই আক্রান্তদের সারাতে অ্যান্টিবডির আবিষ্কার নিয়ে কাজ করে যাচ্ছেন বিজ্ঞানীরা। সংক্রমণ ঠেকাতে বিগত ১০০ বছরে ধরেই অ্যান্টিবডির মাধ্যমে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। যদিও সবক্ষেত্রে এই পদ্ধতি শতভাগ সাফল্য পায়নি।

সরেন্তো থেরাপিউটকসের সিইও ডা. হেনরি জি বলেন, “অ্যান্টিবডি মানব কোষে ভাইরাস প্রবেশ করতে দেয় না। তারা যদি কোষে প্রবেশ না করতে পারে, তাহলে বংশবিস্তারও করতে পারে না। এর অর্থ হলো, আমরা যদি ভাইরাস কোষে প্রবেশ করতে না দেই, তাহলে শেষ পর্যন্ত সেটির মৃত্যু ঘটবে।”

তিনি আরও বলেন, বাজারে করোনাভাইরাসের পরীক্ষিত ভ্যাক্সিন আসার আগে অ্যান্টিবডি থেরাপিই হবে সবচেয়ে কার্যকর চিকিৎসা।
যুক্তরাষ্ট্রের ফুড অ্যান্ড ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশসের সাবেক কমিশনার স্কট গটলিয়েব ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের এক কলামে লেখেন, “কোভিড-১৯ থেকে এর মধ্যেই যারা সুস্থ হয়েছেন তাদের রক্ত থেকে চিকিৎসকরা প্লাজমা নিয়ে সংকটপূর্ণ রোগীদের শরীরে দিয়েছেন। রক্তের ওই প্লাজমায় অ্যান্টবডি ছিল এবং এই পদ্ধতি আশা জাগিয়েছে।”

তবে চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের এ নিয়ে আশঙ্কারও শেষ নেই। তারা বলছেন, সরেন্তো থেরাপিউটকস এর কার্যকর সামাধান বের করেছে বলে আশা করছেন বিশেষজ্ঞরা। অ্যান্টিবডি মাধ্যমে করোনাভাইরাসের চিকিৎসা আশাব্যঞ্জক হলেও, তা করোনাভাইরাস আক্রান্ত রোগীর শরীরে কতোক্ষণ যুদ্ধ করে যেতে পারবে তার কোনো নিশ্চয়তা আপাতত নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Translate »